web stats জেনে নিন, অতিরিক্ত ঘামের কারণ ও প্রতিকার

বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৬

জেনে নিন, অতিরিক্ত ঘামের কারণ ও প্রতিকার

স্বাভাবিক তাপমাত্রায় যখন অন্য কেউ ঘামছে না, তখন কারো ঘাম বেশি হলে ধরা যায় তিনি কোনো অসুস্থতায় ভুগছেন। অনেকের হাতের তালু ও পায়ের তলা বেশি ঘামে। একে হাইপার হাইড্রোসিস বলে। স্বাভাবিক মাত্রায় ঘাম কোনো অসুখ নয়।ঘামের সঙ্গে দূষিত পদার্থ বের হয়ে যায়। তবে এর সঙ্গে পানি ও কিছু লবণও বের হয়ে যায়। ঘাম হলে শরীরের অভ্যন্তরের অতিরিক্ত তাপ কমে যায়।

ঘাম কেন হয় :
কেউ অতিরিক্ত ব্যায়াম করলে, নার্ভাস হলে কিংবা রোদে গেলে অতিরিক্ত ঘাম হতে পারে। পরীক্ষার সময় অতিরিক্ত মানসিক চাপ থেকেও বেশি ঘাম হতে পারে। মশলাযুক্ত, ঝাল বা তৈলাক্ত খাবার অতিরিক্ত খেলেও বেশি ঘাম হতে পারে।

আয়োডিনযুক্ত খাবার যেমন- এসপ্যারাগাস, ব্রকোলি, গরুর গোশত, যকৃত, পেঁয়াজ, খাবার লবণ অতিরিক্ত খেলেও ঘাম বেশি হতে পারে। শারীরিক দুর্বলতা থেকেও ঘাম হয়। পাউডার ব্যবহার থেকেও ঘাম দূর করার পরিবর্তে তা আরো বাড়িয়ে দেয়। অতিরিক্ত ধূমপানের কারণেও ঘাম হয।

কী করবেন :
ঘামের সঙ্গে যেহেতু সোডিয়াম, পটাশিয়াম, বাইকার্বনেট বেরিয়ে শরীর দুর্বল ও অস্থির হয়ে যায় তাই পানির সঙ্গে লবণ, চিনি, পাতিলেবু মিশিয়ে শরবত খেলে এ সমস্যা থেকে পরিত্রান পেতে পারেন। গরমে দইয়ের ঘোল ও ডাব খেতে পারেন।

কফি শরীরে অ্যাডরেনালাইন হরমোন তৈরি করে। এর ফলে শরীরে অতিরিক্ত ঘাম হয়। অতিরিক্ত ঘাম হওয়ার সমস্যা থাকলে কফি পানের অভ্যাস ছেড়ে দিন।

কোল্ড ড্রিংকসের পরিবর্তে ফ্রেশ ফ্রুট জুস ও টাটকা ফল খান। ভিটামিন বি-১২-এর অভাবে যেহেতু হাইপারহাইড্রোসিস হয় তাই বি-কমপ্লেক্স যুক্ত খাবার খান।এছাড়াও রক্ত পরীক্ষার মধ্যে থাইরয়েড ফাংশন টেস্ট করা যায়।

Loading...

এই বিভাগের আরো খবর


Loading…

WP2Social Auto Publish Powered By : XYZScripts.com