web stats নরসিংদীতে এয়ারটেল ও রবির গ্রাহকরা চরম ভোগান্তিতে

রবিবার, ১৯ মে ২০১৯, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

নরসিংদীতে এয়ারটেল ও রবির গ্রাহকরা চরম ভোগান্তিতে

নরসিংদী জেলা প্রতিনিধিঃনরসিংদী সদর উপজেলায় এয়ারটেল ও রবির যৌথ নেটওয়ার্ক মোবাইল টাওয়ার থেকে বেশিরভাগ সময়ই বন্ধ থাকে মোবাইল নেটওয়ার্ক। ফলে এয়ারটেল ও রবির হাজার হাজার গ্রাহক পরেন চরম ভোগান্তিতে।

নরসিংদী সদর উপজেলার আমদিয়া ইউনিয়নের মাত্রা গ্রামে ২০১১ ইং সালে জমি ভাড়া নিয়ে এয়ারটেল মোবাইল নেটওয়ার্ক টাওয়ার স্থাপন করে যার সাইড কোড (২৩৪৪) । এই টাওয়ার সংলগ্ন প্রতিটি গ্রামের প্রায় প্রতিটি বড়ি থেকেই প্রবাসে থাকেন যার ফলে এই গ্রাম সহ আশেপাশের গ্রাম গুলোতে ইন্টারনেট ব্যাবহারকারীর সংখ্যা বেশি আর এই মোবাইল কোম্পানির টাওয়ার গ্রাহকদের খুব কাছাকাছি হওয়ায় নিরবিচ্ছিন্ন নেটওয়ার্ক পাওয়ার আশায় বেশিরভাগ গ্রাহকই এয়ারটেলের।

নেটওয়ার্ক সেবা ভালো পাওয়ায় গ্রাহক সংখ্যাও বাড়ে তাদের প্রায় ২ বছর ধরে এই টাওয়ারটির সাথে যুক্ত হয় রবি যার সাইড কোড সদর (৫০) দুই টি মোবাইল কোম্পানি যৌথ নেটওয়ার্কে আসায় আরো বহুগুণে বেড়ে যায় তাদের গ্রাহক সংখ্যা। বর্তমানে স্থানীয় রবি ও এয়ারটেল গ্রাহকদের অভিযোগ প্রায় দেড় বছর যাবত তারা ভুগছেন চরম নেটওয়ার্ক ভোগান্তিতে ২ থেকে ৩ ঘন্টা বিদ্যুৎ না থাকলেই বন্ধ হয়ে যায় ইন্টারনেট তার কিছু সময় পার হলে পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায় মোবাইলের নেটওয়ার্ক।

স্থানীয়রা জানান, গ্রাম অঞ্চলে একটু ঝড় বৃষ্টি হলেই বিদুৎ থাকেনা অনেক সময় ধরে। সরজমিনে ঘুরে দেখা যায় অন্য মোবাইল টাওয়ার গুলোতে জেনারেটর ব্যাবস্থা থাকলেও এটি তে নেই সে ব্যাবস্থা। স্থানীয়রা আরো জানায় টাওয়ারটিতে আগে জেনারেটর ব্যাবস্থা থাকলেও বর্তমানে তা নেই তাই বিদ্যুৎ না থাকলেই থাকেনা মোবাইলের নেটওয়ার্ক আর যোগাযোগ বিছিন্ন হয়ে পরেন গ্রাহকরা ।

এ ব্যাপারে নরসিংদী জেলা জোনের রবি মোবাইল টাওয়ারের দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তাদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা অভিযোগ স্বীকার করে বলেন সাইট ডাউন হলে আমরা পিজি ( ছোট জেনারেটর) পাঠাই সেটি পৌঁছাতে হয়তো একটু দেরি হয় স্থায়ী কোনো ব্যাবস্থা করবেন কি না সে প্রশ্ন করা হলে তারা বলেন এটি উর্ধতন কর্মকর্তা বা হেড অফিস বলতে পারবে। এদিকে ভুক্তভোগী গ্রাহকরা বলেন এটি কোম্পানির উদাসীনতা ও প্রতারণা এই ভোগান্তির প্রতিকার চান তারা।

এই বিভাগের আরো খবর