web stats যেভাবে বুঝবেন আপনার মনের মানুষটি অন্যের প্রতি আকৃষ্ট কিনা

শুক্রবার, ২৪ মে ২০১৯, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

যেভাবে বুঝবেন আপনার মনের মানুষটি অন্যের প্রতি আকৃষ্ট কিনা

এখনকার জেনারেশন খুব অল্প বয়স থেকেই কোন না কোন সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ছে একথা সকলেই জানি। স্কুল লাইফ থেকেই প্রায় সব ছেলে মেয়ের মনে ভালোবাসার চারা রোপন হয়ে যাচ্ছে এবং তারা তাদের মনের মানুষের সাথে একটা রিলেশনে চলে আসছে।

কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক বিষয় হল বেশিরভাগ সম্পর্কই হচ্ছে খুব স্বল্পস্থায়ী। অর্থাৎ বড় জোর দু থেকে তিন বছর একটা সম্পর্ক টিকছে কোথাও কোথাও আবার সেটা মাস ছয় কিংবা তিনের মধ্যেও সীমাবদ্ধ থাকছে। রিলেশন যেমন গড়ছে তেমনই ভাঙছেও হু হু করে।

ব্যতিক্রম অবশ্যই আছে তবে সেটা আমাদের আলোচনার বিষয় নয়। নানা কারণে আজকালকার সম্পর্ক গুলো ভীষণই স্বল্পস্থায়ী হয়ে উঠছে। তবে এর মধ্যে অন্যতম প্রধান কারণ যেটি সেটি হল, সম্পর্কে থাকাকালীন তৃতীয় কোন ব্যক্তির প্রতি আকৃষ্ট হওয়া বা তার সাথে গোপনে সম্পর্কস্থাপন।

শুধুমাত্র অল্পবয়সী ছেলেমেয়েই নয়, বিবাহিত এবং পরিণত পুরুষ মহিলাদের মধ্যেও এই প্রবণতা ভীষণভাবে বর্তমান। এর ফলে শুরু হয় নানা ছোটখাটো বিষয় নিয়ে নিজেদের মধ্যে অশান্তি এবং একটা সময় গিয়ে পরিণতি হল ভাঙন। উল্টোদিকের মানুষটি বুঝতেও পারেনা কী হয়ে গেল বা যখন বোঝেন অনেক দেরি হয়ে যায়।

আগে থেকে বুঝতে পারলে হয়তো উল্টোদিকের মানুষটাকে আবার ফিরিয়ে আনা যায় যদিও এটা একজনের সম্পুর্ন ব্যক্তিগত মতামত তিনি সেই মানুষটির সাথে আবার থাকতে চাইবেন কি না।

কী দেখে বুঝবেন যে আপনাদের মধ্যে তৃতীয় কোন ব্যক্তি ঢুকে পড়েছে….

১) প্রথমেই একটা ব্যাপার একটু খেয়াল করুন আপনার এবং আপনার মনের মানুষের মধ্যে কোথাও কমিউনিকেশন গ্যাপ হচ্ছে কিনা।

যেমন ধরুন আগে যেমন কথা হত সেরকম পরিমানে কথা হচ্ছে কি না বা সে কি আপনাকে খুব ছোট ছোট রিপ্লাই দিয়ে আপনাকে এড়িয়ে যেতে চাইছে কিনা বা আপনি ফোন করলে দায়সারা কথা বলে ফোন কেটে দিচ্ছে কি না।

যদি এটা হয় তাহলে আপনি সরাসরি কথা বলুন হয়তো অন্য কোন কারণেও সে এমন করছে কিন্তু বিষয়টা আপনার কাছে পরিষ্কার হওয়ার দরকার আছে।

২) এখন সবই সোশ্যাল নেটওয়ার্ক সাইটে 1:1 চ্যাটের যুগ। কে ইনবক্সে কার সাথে কী কথা বলছেন তা কারোরই জানার কথা নয় সেক্ষত্রে আপনাকে একটা সম্পর্কে থাকতে গেলে উল্টোদিকের মানুষটার প্রতি অগাধ বিশ্বাস রাখতে হবে ঠিকই কিন্তু অন্ধ বিশ্বাস রাখবেন না।

খেয়াল করুন সে কি দিনের বেশিরভাগ সময়ই ফেসবুকে অন থাকছে কিন্তু আপনাকে এড়িয়ে যাচ্ছে? এমনটা হলে সরাসরি কথা বলুন।

৩) আপনার মনের মানুষ কি আপনাকে কারোর সাথে তুলনা করছে? শুনুন ভালোবাসা হয় তুলনাহীন। আপনি কোন প্রোডাক্ট নন যে আপনাকে অন্য কোন ভালো প্রোডাক্টের সাথে তুলনা করা হবে।

সুতরাং তুলনা এসে থাকলে একটু ভাবার বিষয় আছে। সরাসরি তাকে জিজ্ঞাসা করুন সে কি আপনার সাথে সুখী নয়? সে কি বেড়িয়ে আসতে চাইছে সম্পর্ক থেকে?

৪) আপনারা আগে যতটা সহজ ছিলেন সামনাসামনি দেখা হলে এখনো কি ততটাই সহজ আছেন? না থাকলে কেন নেই সেই কারন খুঁজুন। আপনার সঙ্গী/সঙ্গিনী কি কোন পারিবারিক সমস্যায় ভুগছেন না কি পুরোটাই কোন তৃতীয় ব্যক্তির আগমনের ফল সেটা আপনাকে জানতে হবে।

৫) সে কি এখন যে কোন ছোটখাটো বিষয়ে আপনাকে কাঠগড়ায় তুলতে শুরু করেছে? আপনার ভালো লাগা, খারাপ লাগে, ইমোশন এগুলো কে কি আর দাম দিচ্ছে না? আপনার প্রতি একটা কেয়ারলেস মনোভাব নিয়ে চলছে? তাহলে নিশ্চই ভেতরে কিছু গুবলেট আছে। সরাসরি কথা বলুন এবিষয়ে।

দেখুন এছাড়াও আরো অনেক ভাবে আপনি বিষয়টা বুঝতে পারবেন যদি যায়নি তাকে ভালো করে চেনেন তবে। কিন্তু সব সমস্যার সমাধান একটাই, সরাসরি কথা বলা।

সে যদি মুখ ফুটে বলতে না পারে আপনি তাকে সেই স্পেস করে দিন। চেপে রেখে কোনকিছুর সমাধান হয়না। যে সম্পর্ক ভাঙার সে কিন্তু ভাঙবেই বরং সরাসরি কথা বললে আপনার মনের মানুষটি নিজের ভুল বুঝতে পেরে আবার আপনার কাছে ফিরে আসতে পারে।

এই বিভাগের আরো খবর