counter নরসিংদীর চরদিঘলদীতে আবারো টেঁটাযুদ্ধ, আহত ১২

মঙ্গলবার, ১৯শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৩রা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

নরসিংদীর চরদিঘলদীতে আবারো টেঁটাযুদ্ধ, আহত ১২

দিনার চৌধুরী,নরসিংদী: আবারও অশান্ত হয়ে উঠেছে নরসিংদী সদর উপজেলার মাধবদী থানার চরদিঘলদী ইউনিয়ন । আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বারবার টেঁটা যুদ্ধ হয়েছে দুর্গম অঞ্চল চরদিঘলদী। পুলিশ প্রশাসন , জেলা প্রশাসন, বিভিন্ন সময় মাননীয় মন্ত্রী , এমপি উপজেলা চেয়ারম্যান এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ একাধিকবার চেষ্টা করেও থামাতে পারেনি এই মরন খেলা টেঁটা যুদ্ধ । চরাঞ্চলের মানুষগুলো যেন যাযাবরের ন্যায় রক্ত পিচাশ। একাধিক খুন জখম, গুমসহ, পঙ্গুত্ব বরণ করেছেন অনেক মানুষ, নারী পুরুষ, শিশু আবাল-বৃদ্ধ-বনিতা টেঁটা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৭ জানুয়ারি দুপুর ১টায় ভয়াবহ টেঁটা যুদ্ধ সংঘটিত হয়। এতে প্রায় উভয় গ্রুপের ১০/১২ জন আহত হয়। আনুমানিক ৫০/৬০ টি বাড়িঘর ভাঙচুর ও লুটপাট করে প্রায় দুই আড়াই কোটি টাকার মালামাল ক্ষতি সাধনের অভিযোগ পাওয়া গেছে । বিজয়ী শওকত আলী গ্রুপ নিয়ে গেছেন গরু, গরুর বাছুর, ছাগল, বিভিন্ন আসবাবপত্র, ফার্নিচার সহ, দামি কাপড় চোপড় । ইউনিয়নের বিভিন্ন বাড়ি ও বাজারের দোকান থেকে মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। অনুসন্ধানে জানা যায় চরদিঘলদী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল মনসুর সরকার ও তার ছেলে শামীম সরকার একটি গ্রুপের নেতৃত্ব দিয়ে আসছে । অপর গ্রুপের নেতৃত্ব দিচ্ছেন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শওকত আলী প্রধান ও মাধবদী থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন শাহিন। ঘটনার দিন পূর্ব শত্রুতার জের ধরে চেয়ারম্যান গ্রুপের লোকের সাথে শওকত আলী গ্রুপের লোকদের কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে মারামারি শুরু হয়। এঘটনা ছড়িয়ে পড়লে এলাকায় উত্তেজনা শুরু হয়ে টেঁটা, বল্লম, দা, ছুরি, ককলেট ও বিভিন্ন আগ্নেয়াস্ত্র সংগ্রহ করে শওকত আলী ও দেলোয়ার গ্রুপের লোকেরা চেয়ারম্যান গ্রুপের লোকের উপর হামলা করলে উভয় পক্ষের ১০/১২ জন গুরুতর আহত হয়। এসময় চেয়ারম্যান গ্রুপের ৩ জন মেম্বারসহ ৯ জন টেঁটাবিদ্ধ হয়ে মারাত্তকভাবে আহত হয়। আহতরা নরসিংদী সদর হসপিটাল, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি আছে। এঘটনার খবর পেয়ে মাধবদী থানা পুলিশ এলাকায় গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।

এ ব্যাপারে চরদিঘলদী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল মনসুর জানান শওকত আলী ও দেলোয়ার হোসেন শাহীন এলাকায় বোমাবাজি, সন্ত্রাসী কর্মকান্ড, লুটপাটসহ ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে । আমাদের গ্রুপের ৯ জনকে টেঁটা মেরে মারাত্মক জখম করেছে প্রত্যেকের গায়ে দশ-বারোটি করে টেঁটাবিদ্ধ করেছে। প্রায় ২ কোটি টাকার মালামাল ক্ষতি করেছে। আমার পরিষদের তিনজন মেম্বার টেঁটা বৃদ্ধ হয়েছে । প্রায় ৫০ টি বাড়িঘর ভাঙচুর করেছে এবং গরু ,বাছুর, ছাগল আসবাবপত্র, দামি কাপড়-চোপড় লুট করে নিয়ে গেছে । শওকত আলী প্রধানের অত্যাচারে অতিষ্ঠ চরদিঘলদী ইউনিয়নবাসী। তার কাছে শিশু, বৃদ্ধ, যুবক এমনকি ছাত্র-শিক্ষক পর্যন্ত নিরাপদ নয়। কথায় কথায় এলাকায় টেঁটা বাহিনী নামিয়ে দিয়ে শুরু করে ভাঙচুর, লুটপাট, টেকটা যুদ্ধ। শওকতের হাত থেকে বাঁচতে চায় এলাকাবাসী ।
এ ব্যপারে এলাকায় গিয়ে বিভিন্ন লোকের সাথে আলাপ করলে তারা জানায় শওকত আলী ও দেলোয়ার হোসেন শাহিন তাদের দল ভারী করার জন্য বিগত নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থীর বিরোদ্ধে যেসকল বিএনপি , জামাত শিবিরের নেতাকর্মীরা সন্ত্রাসী কর্মকান্ড করে আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের এলাকা ছাড়া করেছে সেই সকল বিএনপি নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে বর্তমানেও আওয়ামীলীগের চেয়ারম্যানের বিরোদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে এবং আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাট করছে। তার উদাহরন গত ১৭ জানুয়ারির টেঁটাযুদ্ধের সময় যুবদল নেতা ও বিএনপি চেয়ারম্যান প্রার্থী ইউনুছের হাতে রাম দাঁ নিয়ে ঘোরাফেরা করতে দেখা গেছে। সাথে ছিল দেলোয়ার হোসেন শাহীন। যার ভিডিও ইতোমধ্যেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়ে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে।
এব্যাপারে শওকত আলী প্রধানের সাথে আলাপ করলে তিনি বলেন চেয়ারম্যানের গ্রুপের লোকেরা আমাদের লোকজনের উপর হামলা করলে আমরা প্রতিরোধ করলে আমাদের কয়েকজন লোককে পিটিয়ে আহত করেন। এব্যপারে মাধবদী থানায় উভয়পক্ষের দুটি মামলা হয়েছে। চেয়ারম্যান গ্রুপের পক্ষের লোক কালাই ভূইয়া বাদি হয়ে আজগর আলীকে প্রধান আসামী করে ২৮ জনের নাম উল্লেখ করে আরো অজ্ঞাত ৪০/৫০ জনের নামে মাধবদী থানায় একটি মামলা করেন। মামলা নং-১৬। তারিখ ২০/১/২১ইং।
অপর দিকে শওকত আলী প্রধানের পক্ষে নাছির উদ্দিন বাদি হয়ে সাদেক মিয়াকে প্রধান আসামী করে ২৬ জনের নাম উল্লেখ করে আরো অজ্ঞাত ৩০/৩৪ জনের নামে মাধবদী থানায় একটি মামলা করেন। মামলা নং-১৫। তারিখ ২০/১/২১ইং।
এঘটনায় এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। যেকোন সময় আবারো সংঘর্ষ হতে পারে।

এই বিভাগের আরো খবর